সদ্য সংবাদ
Home / দেশ জুড়ে / নববধূ-স্বজন হারিয়ে পদ্মার পাড়ে কাঁদছেন বর রুমন

নববধূ-স্বজন হারিয়ে পদ্মার পাড়ে কাঁদছেন বর রুমন

সংসার জীবনের মাত্র একদিন পার করেন আসাদুজ্জামান রুমন। বুকভরা স্বপ্নের আল্পনায় ভবিষ্যত সাজিয়েছিলেন নতুন স্বামী-স্ত্রী। তবে শ্বশুর বাড়িতে বেড়াতে যাওয়ার সময় পদ্মায় ডুবে গেল রুমনের স্বপ্নের ভবিষ্যত। হারিয়ে গেল অনেক স্বজনের তাজা প্রাণ। এরইমধ্যে ছয়জনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। তবে এখনো নববধূ সুইটি খাতুন পূর্ণিমাসহ তিনজনের মরদেহ উদ্ধার হয়নি। এতে নদীর পাড়ে বসে কাঁদছেন প্রিয়তমা হারানো রুমন।

শুক্রবার সন্ধ্যা পর্যন্ত রাজশাহী নগরীর শ্রীরামপুরে নৌকাডুবির ঘটনায় এখনো তিনজন নিখোঁজ রয়েছেন। নিখোঁজরা হলেন- নববধূ পূর্ণিমা, তার খালা আঁখি ও ফুফাতো বোনের মেয়ে রুবাইয়া।

নিখোঁজ কনের চাচা শামীম, চাচি মনি বেগম, তাদের মেয়ে রশ্মি, কনের দুলাভাই রতন আলী, ভাগনি মরিয়ম ও খালাতো ভাই এখলাসের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।

কান্নাজড়িত কণ্ঠে বর রুমন বলেন, চলন্ত নৌকা বিকল হলে দমকা বাতাস লাগে। এতে নৌকাটি উল্টে ডুবে যায়। অন্যদের সঙ্গে সাঁতরে তীরে ফিরতে পারলেও পূর্ণিমাকে হারিয়ে ফেলি আমি। আমি শেষ বারের মতো তার মুখ দেখতে চাই।

৫ মার্চ রাজশাহীর পবা উপজেলার চরখিদিরপুরের ইনসার আলীর ছেলে আসাদুজ্জামান রুমনের সঙ্গে একই উপজেলার ডাঙেরহাটের শাহীন আলীর মেয়ে সুইটি খাতুন পূর্ণিমার বিয়ে হয়। ৬ মার্চ বরের বাড়ি থেকে বর-কনেকে নিজেদের বাড়িতে নৌকা যোগে নিচ্ছিল কনেপক্ষ। সন্ধ্যা ৭টায় রাজশাহী নগরীর শ্রীরামপুর ডিসির বাংলোর পদ্মা নদী অংশে নৌকা পৌঁছালে দুর্ঘটনাটি ঘটে। ওই সময় বরসহ ৩২ জন সাঁতরে নদীর পারে উঠতে সক্ষম হন। বাকিরা নিখোঁজ ছিলেন। পরে বিভিন্ন সময়ে বাবা-মাসহ ছয়জনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।

About bdlawnews

Check Also

রাবির আইন বিভাগের ছাত্রীর ঝুলন্ত মরদেহ ছাত্রীনিবাস থেকে উদ্ধার

: রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) আইন বিভাগের এক ছাত্রীর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। তার নাম মোবাসসিরা …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Powered by themekiller.com