সদ্য সংবাদ
Home / আইন আদালত / মানবতাবিরোধী অপরাধে ১৩ যুদ্ধাপরাধী গ্রেফতার

মানবতাবিরোধী অপরাধে ১৩ যুদ্ধাপরাধী গ্রেফতার

কুড়িগ্রামের উলিপুরে মানবতাবিরোধী অপরাধে জড়িত থাকার অভিযোগে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের দায়েরকৃত মামলায় হাতিয়া গণহত্যার অন্যতম নেপথ্য নায়ক আকবর আলী মাওলানাসহ ১২ রাজাকারকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। শনিবার রাতভর অভিযান চালিয়ে উপজেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, এক বছর আগে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের একটি তদন্তকারীদল বহুল আলোচিত হাতিয়া গণহত্যাসহ মুক্তিযুদ্ধকালীন সময়ে এ এলাকার সকল হত্যাকাণ্ডের তদন্ত শুরু করেন। তদন্তকারীদল কয়েক দফা তদন্ত শেষে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে মামলা দায়ের করা হয়। মামলা নং-০১/২০২০ইং। মামলা দায়েরের পর আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল এসব যুদ্ধাপরাধীর বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন। এরই প্রেক্ষিতে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার উলিপুর অঞ্চল আল মাহমুদ হাসান ও অফিসার ইনচার্জ মোয়াজ্জেম হোসেনের নেতৃত্বে পুলিশের ৫টি টিম গত শনিবার রাতভর অভিযান চালিয়ে উপজেলার বিভিন্ন গ্রাম থেকে ১২জন অভিযুক্ত যুদ্ধাপরাধিকে গ্রেফতার করেন।

তারা হলেন- উপজেলার হাতিয়া ইউনিয়নের হাতিয়া ভবেশ গ্রামের মৃত তাহের উদ্দিনের ছেলে মাওঃ আকবর আলী (৭৮), ডোবার পাড় (তৎকালীন রামখানা) গ্রামের মৃত আঃ জলিলের ছেলে শাহাজাহান আলী (৬৮), ওই গ্রামের মৃত নজিম উদ্দিনের ছেলে সাইদুর রহমান ওরফে সৈয়দ মাওলানা (৬২), উপজেলার দূর্গাপার ইউনিয়নের গোড়াই গ্রামের মৃত আঃ জব্বারের ছেলে নুর ইসলাম (৫৮), একই এলাকার ইরফান আলীর দুই ছেলে ইছাহাক আলী (৬৩) ও ইসমাইল হোসেন (৬৬), একই এলাকার মৃত আমান উল্লার ছেলে ওসমান আলী (৬৮), মতিউল্লার ছেলে আব্দুর রহমান (৬৩), বছিয়ত উল্লার ছেলে সোলেমান আলী (৭২), আঃ জব্বারের ছেলে আব্দুর রহিম (৬৩), মৃত ফজল উদ্দিনের ছেলে আঃ কাদের (৬৫), উপজেলার ধরনীবাড়ি ইউনিয়নের দিগর মালতিবাড়ি গ্রামের মৃত সামসুদ্দিন সরকারের ছেলে মফিজুল হক (৮০)।

এদিকে একই মামলায় জেলার রাজারহাট উপজেলার উমর মজিদ ইউনিয়নের নলকাটা বালাকান্দি গ্রামের মৃত শরফ উদ্দিনের ছেলে মকবুল হোসেন দেওয়ানীকে (৭০) গ্রেফতার করে পুলিশ।

উল্লেখ্য, ১৯৭১ সালের ১৩ নভেম্বর জেলার উলিপুর উপজেলার হাতিয়া ইউনিয়নের দাগারকুটি, রামখানা, নীলকণ্ঠসহ আশপাশ গ্রামে পাকিস্তানী সেনাবাহিনী, রাজাকার-আলবদর ও স্থানীয় দালালরা মিলে প্রায় ৭০০ নিরীহ-নিরস্ত্র ঘুমন্ত মানুষকে নির্বিচারে গুলি করে হত্যা করে। এসময় ওই গ্রামগুলো জ্বালিয়ে শ্বশান ভূমিতে পরিণত করে। উলিপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মোয়াজ্জেম হোসেন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন। -ইত্তেফাক

About bdlawnews

Check Also

চিকিৎসকের পরিচয়পত্র দেখা নিয়ে সেই নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট বদলি

ঢাকা জেলা প্রশাসনের সহকারী কমিশনার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট শেখ মো. মামুনুর রশীদকে বরিশাল বিভাগে বদলি …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!

Powered by themekiller.com