Home / Uncategorized / চাল কেলেঙ্কারির অভিযোগ, পেকুয়ার ইউএনও প্রত্যাহার

চাল কেলেঙ্কারির অভিযোগ, পেকুয়ার ইউএনও প্রত্যাহার

পেকুয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সাঈকা সাহাদাতকে প্রত্যাহার করা হয়েছে।
৩০ এপ্রিল জারিকৃত এক প্রজ্ঞাপনে তাকে চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনার কার্যালয়ে সংযুক্ত করা হয়েছে।
চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনার কার্যালয়ের অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার (সার্বিক) শংকর রঞ্জন সাহা স্বাক্ষরিত উক্ত প্রজ্ঞাপনে আগামী ৩ মের মধ্যে বদলিকৃত কর্মস্থলে যোগদানের আদেশ দেয়া হয়েছে৷
তৎস্থলে কুমিল্লার ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নাজমা সিদ্দিকা আকতারকে পেকুয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হিসাবে নিয়োগ দেয়া হয়েছে৷
পেকুয়ার প্রত্যাহারকৃত ইউএনও সাঈকা সাহাদাতের বিরুদ্ধে সম্প্রতি ১৫ টন চাল কেলেংকারীতে জড়িত থাকার অভিযোগ উঠে।
আলোচিত এ ঘটনায় টৈটং ইউ পি চেয়ারম্যান জাহেদুল ইসলাম চৌধুরীর বিরুদ্ধে বিশেষ ক্ষমতা আইনে মামলা দায়ের করা হয়। এরপর তাকে সাময়িক বরখাস্ত করে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়।
কিন্তু চাল কেলেংকারীর এ ঘটনায় নেপথ্যে ইউএনও’র সংশ্লিষ্টতা নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে গত কয়েকদিন ধরে সরব হয়ে উঠে সাধারণ মানুষ। বিশেষ করে আওয়ামী লীগের দলীয় নেতাকর্মীরা চাল আত্মসাতের নাটেরগুরু হিসেবে ইউএনও কে দায়ী করে গত কয়েকদিন ধরে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে একের পর এক স্ট্যাটাস দিতে থাকেন। পেকুয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবুল কাশেম, চকরিয়া পৌর আওয়ামীলীগের সভাপতি জাহেদুল ইসলাম লিটুসহ শীর্ষ নেতারা এ ঘটনার জন্য সরাসরি ইউএনও কে দায়ী করেছেন। তাদের দাবী, জাহেদুল ইসলামকে ফাঁসানো হয়েছে। ইউএনও সাঈকা সাহাদাত তাকে ঠান্ডা মাথায় ফাঁসিয়ে দিয়েছেন।
সাধারণ মানুষ বলছেন, এ ঘটনায় শুধু চেয়ারম্যান নয়, ইউএনওও জড়িত। পেকুয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সাঈকা সাহাদাত ও টৈটং ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান জাহেদুল ইসলাম চৌধুরীর যোগসাজসের মাধ্যমে চালগুলো কালোবাজারি করেছে।

About bdlawnews

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!

Powered by themekiller.com