Home / কোর্ট প্রাঙ্গণ / বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন বাস্তবায়নে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায় সহায়ক হতে সহায়তা চায় শিক্ষানবিশ আইনজীবীরা।

বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন বাস্তবায়নে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায় সহায়ক হতে সহায়তা চায় শিক্ষানবিশ আইনজীবীরা।

আমি যদি বাংলার মানুষের মুখে হাসি ফোটাতে না পারি, আমি যদি দেখি বাংলার মানুষ দুঃখী,আর যদি দেখি বাংলার মানুষ পেট ভরে খায় নাই,তাহলে আমি শান্তিতে মরতে পারব না”।

.…...উক্তিটি করেছিলেন হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালী, এদেশের রুপকার,বাঙ্গালী জাতির পিতা,বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। জাতীর পিতার লালিত স্বপ্নের বাস্তবায়নে বদ্ধ পরিকর,বঙ্গবন্ধুর আদর্শের উত্তরাধিকার,তাঁরই সুযোগ্য কন্যা আমাদের
মমতাময়ী মা,জননেত্রী,মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের বাংলাদেশকে সোনার বাংলা গড়তে তিঁনি নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। ইতিমধ্যে এ সফলতায় দেশ ও বিদেশে এর সুনাম অব্যাহত আছে। ফলে তিঁনি বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নগুলো বাস্তবায়নের জন্য এদেশকে আগামী ২০২১ সাল নাগাদ মধ্যম আয়ের দেশ এবং ২০৪১ সাল নাগাদ উন্নত দেশ হিসেবে গড়ে তুলতে জনগনের সর্বাত্মক সহযোগীতা কামনা করেছেন।

বাংলাদেশ আইন সমিতির সাবেক সভাপতি এবং সাধারণ সম্পাদক জনাব মোঃ আবদুন নূর (দুলাল) স্যারের ফেইসবুক টাইম লাইনে তিঁনি লিখেছেন-

পঁচাত্তরে বঙ্গবন্ধুর একটি বক্তৃতার অংশ বিশেষ এখানে তুলে ধরলামঃ
” আর একটি কথা বলি।”এই কথা বলে বঙ্গবন্ধু আধা মিনিট থামলেন। মাথা চুলকালেন। বিচার বিভাগ নিয়ে সাবধানে কথা বলতে হবে – তাই। তারপর বললেনঃ”বিচার বিচার। বাংলাদেশের বিচার। ইংরেজ আমলের বিচার। আল্লাহর মর্জি, যদি সিভিল কোর্টে কেস পড়ে, সে মামলা শেষ হতে লাগে ২০/২৫ বছর। আমি যদি উকিল হই, আমার জামাইকে উকিল বানাইয়া কেস দিয়ে যাই। মামলা ফয়সালা হয়না। যদি ক্রিমিনাল কেস হয়,তার ফয়সালা হতে লাগে ৪/৫ বছর। এই বিচার বিভাগকে নতুন করে সাজাতে হবে”।

বঙ্গবন্ধুর ও স্বপ্ন ছিল আধুনিক বিচার ব্যবস্থা,বিচার বিভাগের স্বাধীনতা। একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধে সদ্য স্বাধীন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ ১৯৭২ সালে পায় নতুন সংবিধান। সেই সংবিধানে বিচার বিভাগের স্বাধীনতা নিয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের চেতনা ছিল সুদূরপ্রসারী এবং জনগণের আশা-আকাঙ্ক্ষা ও চাহিদার প্রতিফলন। বিচার ব্যবস্থার উন্নয়নে বিজ্ঞ আইনজীবীগনের ভূমিকা অপরিসীম। উন্নত দেশগুলোতে জনসংখ্যার অনুপাতে যেমন আইনজীবীর সংখ্যা তেমন আমাদের দেশে নাই। সেজন্য এদেশে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায় আইনজীবীর সংখ্যা বাড়ানো ও তাঁদের সুরক্ষায় সচেষ্ট হওয়া। আর আইনজীবী বাড়ানোর জন্য সরকারের সময় উপযোগী সিদ্ধান্ত একান্ত প্রয়োজন। বঙ্গবন্ধুর লালিত স্বপ্নের বাস্তবায়নে এদেশের শিক্ষিত বেকার শিক্ষানবিশ আইনজীবীরা চায় বঙ্গবন্ধুর লালিত স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়তে। মমতাময়ী মা,দেশরত্ন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ঘোষিত উন্নয়ন পরিকল্পনায় অংশগ্রহণ করতে। প্রধানমন্ত্রী বিভিন্ন শাখা ও বিভাগের মাধ্যমে এ উন্নয়ন কাজ অব্যাহত রেখেছেন। এমনি একটি প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ বার কাউন্সিল। এ শাখার মাধ্যমে দেশের আইনঙ্গনের সেবায় আইনজীবী তালিকাভুক্ত করণ হয়। শিক্ষানবিশ আইনজীবীদের তালিকাভুক্তিতে দীর্ঘ জটিলতার ফলে এরা সমাজে আজ অবহেলিত।
দেশের ৭০০০০+ শিক্ষানবিশ আইনজীবীরাও বঙ্গবন্ধুর লালিত স্বপ্ন পুরনে অঙ্গিকারাবন্ধ হতে চায়। ফলে এদেরকে অকার্যকর ও অনিশ্চিত ভবিষ্যতে রেখে দেশে সুষ্ঠু আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা সম্ভব নয়। দেশের উন্নয়নে আগে শিক্ষিত বেকার স্বনির্ভর কর্মক্ষম করতে হবে। দেশের ৮০% লোক কৃষি নির্ভর তাই যদি বর্তমানে করোনা ক্রান্তিকালে কৃষি জমি ফাঁকা রাখা যাবেনা ও আনাচে-কানাচে হলেও শাক-সবজি চাষ করে দেশের অর্থনীতি চাঙ্গা করার প্রায়াস করছে সরকার।
প্রায় ১০০ বছর আগেও মরণঘাতী করোনার মত কঠিন আঘাত পায়নি পৃথিবী। সারা বিশ্বের অর্থনীতি এখন ভঙ্গুর প্রায়। উন্নত বিশ্বের দেশগুলোও এখন করোনার ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে বিভিন্ন আইন,নিয়ম শিথিল করে দেশকে অর্থনীনিতে চাঙ্গা করছে। এদেশেও চলছে বিভিন্ন উপায়ে অর্থনীতি চাঙ্গা ও জনকল্যান কাজ করে যাতে দ্রুত করোনার ক্ষতি কাটিয়ে উঠা সম্ভব হয়।

শিক্ষানবিশ আইনজীবীদের দাবী- উন্নত বিশ্বে অর্থনীতি চাঙ্গা সহ জনগনের জীবন,মান উন্নয়নে কত কিছু শীথিল হচ্ছে তথাপীয় আমাদের দেশেও হচ্ছে। অবহেলীত শিক্ষিত বেকার শিক্ষানবিশ আইনজীবী (প্রিলি পাশকৃত ২০১৭ও ২০২০) এদেশের উন্নয়নে অংশ নিতে চায়। এদেশ করোনার হাত থেকে কবে মুক্তি পাবে তার নিশ্চয়তা নেই। ফলে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও বার কাউন্সিলের সম্মানিত সদস্যদের করোনা কালীন
একটু মানবিক দৃষ্টি দিয়ে এদের রিটেন,ভাইভা মওকুফ করতঃ গেজেটের মাধ্যমে সনদ দিয়ে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন বাস্তবায়নে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায় সহায়ক হতে সহায়তা চায় শিক্ষানবিশ আইনজীবীরা।

লেখকঃ- মিতা খাতুন, কোর্ট রিপোর্টার ও শিক্ষানবিশ আইনজীবী, খুলনা।

About bdlawnews

Check Also

বরগুনার আলোচিত রিফাত হত্যা: অপ্রাপ্ত বয়স্ক ১৪ আসামির রায় মঙ্গলবার

বরগুনার আলোচিত রিফাত শরীফ হত্যা মামলার অপ্রাপ্তবয়স্ক ১৪ আসামির বিচারের রায় মঙ্গলবার ঘোষণা করা হবে। …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Powered by themekiller.com