সদ্য সংবাদ
Home / কোর্ট প্রাঙ্গণ / স্বপ্ন ভাঙার গল্প- ( ১ ), মায়ের হাতে পরা হলো না কালো কোট-গাউন

স্বপ্ন ভাঙার গল্প- ( ১ ), মায়ের হাতে পরা হলো না কালো কোট-গাউন

এম.ইউ শাকিল, নিজস্ব প্রতিনিধি ॥ 

এলএলবি পরীক্ষায় পাশ করার পর আইনজীবী হিসেবে তালিকাভুক্তির জন্য বাংলাদেশ বার কাউন্সিলে আবেদন করি। ২০১৬ সালে রেজিস্ট্রেশন পাই, এই বছর কোনো পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়নি। প্রায় এক বছর পর ২০১৭ সালে অনুষ্ঠিত এম.সি.কিউ পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হলেও লিখিত পরীক্ষা খারাপ হয়। এরপর প্রতি বছর নিয়মিত পরীক্ষা অনুষ্ঠিত না হওয়ায় এখনো আমি আইনজীবী হিসেবে স্বীকৃতি পাইনি। ইতোমধ্যে আমার মমতাময়ী মা আর এই দুনিয়াতে নাই। আমার ইচ্ছা ছিল মায়ের হাতে কালো কোট-গাউন পড়ে সর্বপ্রথম আদালতে যাবো। কিন্তু আমার স্বপ্ন ভেঙে গেছে। অন্যদিকে ছয় মাস অতিবাহিত হওয়ার পর থেকেই নিয়মিত কোর্টে যাওয়ার নিষেধাজ্ঞা জারি করে স্থানীয় বার এসোসিয়েশন। এছাড়াও সিনিয়রদের অবজ্ঞা তো রয়েছেই। এ অবস্থায় পরিবার-পরিজন নিয়ে আমি মানবেতর জীবন-যাপন করছি। যা কাউকে বলে বুঝানো যাবে না। শুধুমাত্র শিক্ষানবিশ আইনজীবীরাই বুঝবেন-এই দুঃখ ও কষ্টের কথা। আইনজীবী হিসেবে স্বীকৃতি পেতেই আমার জীবন থেকে পাঁচ বছর অতিবাহিত হতে চলছে।

একান্ত সাক্ষাতকারে কান্নাজড়িত কণ্ঠে এসব কথা বলেন নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক শিক্ষানবিশ আইনজীবী জহিরুল ইসলাম ( ছদ্মনাম)।
তিনি আরো বলেন, আমি বিবাহিত। চার বছরের একটি ছেলে সন্তান রয়েছে আমার। সকাল থেকে রাত পর্যন্ত লিখিত পরীক্ষার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছি। কিন্তু পরীক্ষা তো প্রতি বছর হচ্ছে না। নিয়মিত কোর্টে যেতে না পারায় আমার কোন আয় নেই। এ অবস্থায় অন্য কোন পেশাতেও যেতে পারছিনা। দুই ভাইয়ের মধ্যে আমি সবার বড়। ছোট ভাই বি.এ. তৃতীয় বর্ষে অধ্যয়নরত। আমার বাবা একজন অবসরপ্রাপ্ত চাকরিজীবী। তিনি প্রতিমাসে পেনশনের যে কয়টি টাকা পান তা দিয়েই আমাদের সংসার কোনমতে চলছে। ছেলে ও স্ত্রীকে নিজের টাকায় আমি কোন কিছু কিনে দিতে পারিনা। আইনজীবী হিসেবে স্বীকৃতি না পাওয়ায় শ্বশুরবাড়িতে আমার কোন সম্মান নেই। বন্ধু ও সমাজের লোকজন আমাকে নিয়ে বিরূপ মন্তব্য করেন। তাই শ্বশুরবাড়িতে যাইনা এবং বন্ধু ও সমাজের লোকজন থেকে আমি অনেকটাই বিচ্ছিন্ন।

About bdlawnews

Check Also

কুড়িগ্রামে হত্যা মামলায় একজন কাঠমিস্ত্রির মৃত্যুদণ্ড

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি : কুড়িগ্রাম জেলা ও দায়রা জজ আদালত কাঠমিস্ত্রি হত্যা মামলায় অপর একজন কাঠমিস্ত্রিকে মৃত্যুদন্ড …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Powered by themekiller.com