সদ্য সংবাদ
Home / আইন আদালত / জামিন কি? জামিন পাওয়া একজন আসামীর কি অধিকার ?

জামিন কি? জামিন পাওয়া একজন আসামীর কি অধিকার ?

আদালতে সময়মত হাজির করার শর্তে অভিযুক্ত ব্যক্তিকে সাময়িকভাবে আইনগত হেফাজত থেকে মুক্তি প্রদান করাকে জামিন বলে। মামলার যেকোন পর্যায়ে জামিন মঞ্জুর করা যায়। এমনকি বিচার শুরু হবার পরও জামিন মঞ্জুর করা যায়। কোন ব্যক্তির বিরুদ্ধে কোন অপরাধের অভিযোগ থাকলেই তাকে দোষী বলা যায় না। আদালতে দোষী প্রমানিত না হওয়া পর্যন্ত তাকে নির্দোষ ধরতে হবে এটাই আইনের নীতি। তাই দোষী প্রমানিত হবার পুর্বে কাউকে আটকে রাখা হলে তা ন্যায় বিচারের পরিপন্থি হবে।

এছাড়া অভিযুক্ত ব্যাক্তি আটক থাকলে তার সামাজিক,পারিবারিক,শারিরিক, মানসিক নানাবিধ সমস্যা হতে পারে। তাই অহেতুক তাকে আটক রাখা আইনে সমর্থনীয় নয়। আবার বিচারের সময় অপরাধীকে আদালতে থাকা প্রয়োজন, তাই বিচারের সময় তার উপস্থিতি নিশ্চিত করার জন্য ফৌজদারি কার্যবিধিতে জামিনের বিধান রাখা হয়েছে।

আদালত জামিন মঞ্জুরে আইন ও সুবিবেচনামূলক এখতিয়ার প্রয়োগের ক্ষেত্রে নিম্নোক্ত বিষয় সমূহ সাধারণত বিবেচনায় নেন:

  • আসামী পুরুষ, মহিলা, শিশু ও বয়স্ক কিনা?
  • আসামিকে জামিন দিলে মামলার তদন্তে বিঘ্ন বা মামলা পরিচালনায় অন্য কোন সমস্যা হবে কিনা?
  • আসামী রোগাক্রান্ত অথবা জখম প্রাপ্ত কিনা?
  • জামিন পেলে আসামী সুবিধাজনক জায়গায় চলে যাবে কিনা?
  • জামিন দিলে আসামী পলাতক হবে কিনা?
  • জামিন না পেলে আসামীর পক্ষে মামলা পরিচালনা করা কঠিন হয়ে পরবে কিনা?
  • আনীত অভিযোগ ঘৃন্য বা জঘন্য কিনা?
  • দুর্ধর্ষ বা অভ্যাস গত অপরাধী হিসেবে আসামীর দুর্নাম আছে কিনা?
  • আসামীর বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ যুক্তিসংগত মনে হয় কিনা? আসামী হাজতে থাকলে তার পরিবার অনাহারে থাকবে কিনা?
  • আসামীর নাম এজহারে আছে কিনা?
  • আসামী কার্যবিধি ১৬৪ ধারায় স্বীকারোকতিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে কিনা?
  • আসামী পুলিশ কতৃক ধৃত হয়ে ,নাকি স্বেচ্চায় আত্মসমর্পন করেছে ?
  • আসামী হাতেনাতে ধৃত কিনা, আসামির নিকট হতে কৌন অবৈধ মালামাল উদ্ধার করেছে কিনা?
  • আসামীর হাজত বাস দীর্ঘ সময় ধরে কিনা?
  • মামলাটি পক্ষদ্বয়ের মধে কোন পূর্ব শত্রুতার জের কিনা বা পাল্টাপাল্টি মামলা কিনা?

জামিন শুনানিতে পক্ষদ্বয় বিজ্ঞ কৌশলীর উত্থাপিত যুক্তিতর্ক প্রভৃতি ।

ফৌজদারী কার্যবিধি অনুসারে আসামী মুক্তি পেতে পারে:

(ক) জামিন যোগ্য অপরাধঃ ধারা ৪৯৬। জামিনের অযোগ্য অপরাধে অভিযুক্ত ব্যক্তি ব্যতীত অপর কোন ব্যক্তি কোন থানার ভারপ্রাপ্ত অফিসার কর্তৃক বিনা ওয়ারেন্টে গ্রেফতার হলে বা আটক থাকলে, বা আদালতে হাজির হলে বা তাকে হাজির করা হলে, সে যদি উক্ত অফিসারের হেফাজতে থাকার সময় বা উক্ত আদালতের কার্যক্রমের কোন পর্যায়ে জামানত দিতে প্রস্তুত থাকে তা হলে তাকে জামিনে মুক্তি দেয় তবে শর্ত থাকে যে, উক্ত অফিসার বা আদালত উপযুক্ত মনে করলে তার নিকট হতে জামানত গ্রহণের পরিবর্তে সে অতঃপর বর্ণিতভাবে হাজির হবার জন্য জামিনদার ব্যতীত মুচলেকা সম্পাদন করলে তাকে মুক্তি দিতে পারবেন। তবে আরও শর্ত থাকে যে, এই ধারার কোন বিধান ১০৭ ধারার (৪) উপধারা বা ১১৭ ধারার (৩) উপধারার কোন বিধানকে প্রভাবিত করবে বলে গণ্য হবে না।

(খ),জামিন-অযোগ্য অপরাধঃ ধারা ৪৯৭।যখন জামিনের অযোগ্য অপরাধের ক্ষেত্রে জামিন মঞ্জুর করা যাবেঃ

(১) জামিনের অযোগ্য অপরাধে অভিযুক্ত কোন ব্যক্তি থানার ভারপ্রাপ্ত অফিসার কর্তৃক বিনা ওয়ারেন্টে গ্রেফতার হলে বা আটক থাকলে অথবা আদালতে হাজির হলে বা তাকে হাজির করা হলে তাকে জামিনে মুক্তি দেওয়া কিন্তু সে মৃত্যুদন্ড বা যাবজ্জীবন কারাদন্ডে দন্ডনীয় কোন অপরাধে দোষী বলে বিশ্বাস করার যুক্তিসঙ্গত কারণ থাকলে উক্তরূপে দেওয়া যাবে নাঃ তবে শর্ত থাকে যে, আদালত এইরূপ অপরাধে অভিযুক্ত কোন ব্যক্তি ষোল বৎসরের কম বয়স্ক বা স্ত্রীলোক বা পীড়িত বা অক্ষম হলে তাকে জামিনে মুক্তি দেওয়ার নির্দেশ দিতে পারেন।

(২) ক্ষেত্রমতে তদন্ত, ইনকোয়ারী বা বিচারের কোন পর্যায়ে উক্ত অফিসার বা আদলতের নিকট যদি প্রতিয়মান হয় যে, আসামী জামিনের অযোগ্য কোন অপরাধ করেছে বলে বিশ্বাস করার যুক্তিসঙ্গত কারণ নাই, কিন্তু তার অপরাধ-সম্পর্কে আরও ইনকোয়ারির পর্যাপ্ত হেতু রহয়েছে, তাহলে এইরূপ ইনকোয়ারী সাপেক্ষে আসামীকে জামি অথবা উক্ত অফিসার বা আদলত বা আদালতের ইচ্ছানুযাসারে সে অতঃপর বর্ণিতভাবে হাজির হবার জন্য জামিনদার ব্যতীত মুচলেকা সম্পাদন করলে তাকে মুক্তি দিতে পারবেন।

(৩) কোন অফিসার বা আদালত (১) উপধারা বা (২) উপধারা অনুসারে কোনব্যক্তিকে মুক্তি দিলে তার ঐরূপ করার কারণ লিপিবদ্ধ করবেন।

(৪) জামিনের অযোগ্য অপরাধে অভিযুক্ত ব্যক্তির বিচার সমাপ্ত হবার পর এবং রায় দানের পূর্বে কোন সময় আদালত যদি মনে করেন যে, আসামী উক্ত অপরাধে দোষী নয় বলে বিশ্বাস করার যুক্তিসঙ্গত কারণ রয়েছে, তা হলে আসামী হাজতে থাকলে রায় শ্রবণের উদ্দেশ্যে হাজির হবার জন্য জামিনদার ব্যতীত মুচলেকা সম্পাদনের পর তাকে মুক্তি দিবেন।

(৫) হাইকোর্ট বিভাগ বা দায়রা আদালত এবং নিজে মুক্তি দিয়ে থাকলে অন্য কোন আদালত এই ধারা অনুসারে মুক্তিপ্রাপ্ত কোন ব্যক্তিকে গ্রেফতার করতে ও তাকে হাজতে প্রেরণ করতে পারবেন।

লেখক- তৈয়ব আলী মীর

শিক্ষানবীশ আইনজীবী( লিখিত পরীক্ষার্থী) চট্টগ্রাম জজ কোর্ট,চট্টগ্রাম।

About bdlawnews

Check Also

গাজীপুর জেলা কারাগার থেকে ‘শিশুবক্তা’ রফিকুল ইসলাম মাদানীকে কাশিমপুর স্থানান্তর

গাজীপুর জেলা কারাগার থেকে ‘শিশুবক্তা’ রফিকুল ইসলাম মাদানীকে কাশিমপুর হাই সিকিউরিটি কারাগার-২ এ স্থানান্তর করা …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!

Powered by themekiller.com