সদ্য সংবাদ
Home / গ্রেফতার / সাতক্ষীরায় ডোপ টেস্ট এর মাধ্যমে মাদকসসেবী সনাক্তে গ্রেপ্তার ৩৮!

সাতক্ষীরায় ডোপ টেস্ট এর মাধ্যমে মাদকসসেবী সনাক্তে গ্রেপ্তার ৩৮!

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ

সাতক্ষীরা জেলায় ডোপ টেস্টের মাধ্যমে মাদকসেবনকারী সনাক্তে মাঠে নেমেছে পুলিশ। মাদকের বিরুদ্ধে চলছে সাঁড়াশী অভিযান। বৃহস্পতিবা ১৭ আগস্ট রাত পর্যন্ত পুলিশ জেলার বিভিন্ন স্থান থেকে ৩৮জনকে আটক করে তাদের ডোপ টেস্ট করে। এর মধ্যে ১৬ জনের রিপোর্ট পজেটিভ পায় পুলিশ। বাকী ২২ জনের রিপোর্ট আসে নেগেটিভ।

ডোপ টেস্টে পজেটিভ পাওয়া ব্যক্তিদের নিকট থেকে পুলিশ জানতে পারে কাদের কাছ থেকে তারা মাদক কিনেছিল? সেই সূত্র ধরেই মাদক ব্যবসায়ীদের আস্তানায় হানা দিচ্ছে পুলিশ। ফলে মাদক ব্যবসায়ী ও মাদকসেবনকারীদের নির্মূলে এবার মাঠে নেমেছে পুলিশ।

পুলিশের দেওয়া তথ্যমতে, বৃহস্পতিবার (১৭ সেপ্টেম্বর) দুপুর থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত ভোমরা স্থলবন্দর এলাকার মাদক স্পটগুলোতে সাঁড়াশি অভিযান চালিয়ে আটক করা হয় ৩৮ জনকে।

পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মোস্তাফিজুর রহমান (পিপিএম) এর নির্দেশনা এবং সার্বিক তত্ত্বাবধানে সদর উপজেলার ভোমরা এলাকায় সদর থানা পুলিশ এবং সাতক্ষীরা পুলিশ লাইন্স এর ২০ জন সদস্যের সমন্বয়ে মাদক বিরোধী অভিযান পরিচালনা করা হয়।
অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সাতক্ষীরা সদর সার্কেল মির্জা সালাহউদ্দিনের নেতৃত্বে পরিচালিত এ অভিযানে অন্যান্যেদের মধ্যে ছিলেন সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ আসাদুজ্জামান, পুলিশ পরিদর্শক (অপা:) বিপ্লব সরকার, এসআই প্রদীপ কুমার সানা, এসআই মানিক কুমার সাহা, এসআই হাবিব, এসআই অহিদুলসহ অন্যান্যরা।

এছাড়া সাতক্ষীরা সিভিল সার্জন কার্যালয়ের মেডিকেল অফিসার ডাক্তার জয়ন্ত সরকারও এসময় উপস্থিত ছিলেন।

সাতক্ষীরা পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মোস্তাফিজুর রহমান জানিয়েছন, সাতক্ষীরা জেলার বিভিন্ন থানা ও অন্যান্য জেলার মাদকসেবীরা ভোমরার স্থলবন্দর ও সীমান্তবর্তী এলাকায় এসে মাদক সেবন করে আবার নিজ নিজ এলাকায় ফিরে যাচ্ছে-এমন সংবাদের ভিত্তিতে এ অভিযান পরিচালনা করে পুলিশ। এসময় বাহ্যিক লক্ষণ বিবেচনায় এবং উপস্থিত ডাক্তারের পরামর্শে মোট ৩৮ জনকে মাদকসেবী সন্দেহে ডোপ টেস্টের জন্য সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হয়।

ডোপ টেস্ট শেষে ১৬ জনের ক্ষেত্রে রিপোর্ট পজিটিভ এবং ২২ জনের ক্ষেত্রে রিপোর্ট নেগেটিভ আসে। মাদকাসক্ত প্রমাণিত ১৬ জনের নিকট যে সমস্ত মাদক ব্যবসায়ী মাদক বিক্রি করেছিল তাদেরকে সনাক্ত করে পুলিশ। আটক মাদকসেবনকারীদের বিরুদ্ধে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন ২০১৮ অনুযায়ী মামলা হয়েছে বলেও জানায় সূত্রটি।
এদিকে কলারোয়া থানার অফিসার ইনচার্জ শেখ মুনির-উল-গীয়াস বলেন, পুলিশের পৃথক টিম বৃহস্পতিবার গভীর রাত পর্যন্ত (১৭ সেপ্টেম্বর) অভিযান পরিচালনা করে ৭০০ গ্রাম গাঁজাসহ রঘুনাথপুর গ্রামের ইসমাইল মোড়লের ছেলে ইছাক মোড়ল (৪০) ও বাকসা গ্রামের শুকুর আলীর ছেলে আব্দুর রহিম (৩০) কে, ৫০০ গ্রাম গাঁজাসহ ঝাঁপাঘাট গ্রামের আব্দুর রশিদের ছেলে মেহেদী হাসান পলাশ (২৭) ও সোনাবাড়িয়া গ্রামের মৃত বাছের আলীর মেয়ে হামিদা খাতুন (৩৫)কে গ্রেপ্তার করে।

এদিকে বিজিবির অভিযানে কলারোয়ার হিজলদী কমিউনিটি ক্লিনিক সংলগ্ন পাকা রাস্তার পাশে আমবাগানের ভিতর থেকে ৩৭৪ বোতল ফেন্সিডিলসহ দুই ব্যক্তিকে আটক করে বিজিবি। আটককৃতরা হলো-একই ইউনিয়নের গয়ড়া গ্রামের আলতাফ হোসেনের ছেলে চঞ্চল (২০) ও বয়ারডাঙ্গা গ্রামের মতিয়ার গাজীর ছেলে মহাসিন (২২)। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সাতক্ষীরা ৩৩ বিজিবি ব্যাটালিয়নের আওতাধীন হিজলদী বিওপি ক্যাম্পের হাবিলদার ওমর আলী।

About bdlawnews

Check Also

শিশুবক্তা’ রফিকুল ইসলামের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা

শিশুবক্তা’ রফিকুল ইসলামের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা করা হয়েছে গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের (জিএমপি) গাছা …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!

Powered by themekiller.com