Home / কোর্ট প্রাঙ্গণ / চরম বিপর্যয়ে দিন কাটাচ্ছে ১৩ হাজার শিক্ষানবিশ আইনজীবী! দায় কার?

চরম বিপর্যয়ে দিন কাটাচ্ছে ১৩ হাজার শিক্ষানবিশ আইনজীবী! দায় কার?

আজকের শিক্ষানবিশরা-ই আগামী দিনের বার কাউন্সিলের তালিকাভূক্ত আইনজীবী। শুধু তাই নয় আগামী দিনের খ্যাতনামা প্রসিদ্ধ আইনজীবীও বটে। এদের মধ্যেই আছে আগামীর সম্ভাবনাময় সমাজ তথা জাতীকে পরিচালিত করার মত মেধাবী। হতে পারে এদের মধ্য থেকেই কেউ কেউ এম,পি মন্ত্রী বা মিনিস্টার। এরাই আগামীর জাতীর কর্ণধার। প্রথম শ্রেণীর নাগরিকের খেতাব প্রাপ্ত এক নাগরিক।

এত উজ্জ্বল ভবিষ্যতের সম্ভাবনা নিয়ে বার কাউন্সিলের দীর্ঘ্য সূত্রিতা আর অনিয়মের যাতাকলে পিষ্ট হয়ে চরম বিপদে আইডেন্টিটি সংকটে ভুগছে শিক্ষানবিশ আইনজীবীরা।

সম্প্রতিক বি‌ভিন্ন জেলা বার গুলোতে গৃহীত পদক্ষেপ আর নোটিশের মাধ্যমে দালাল নির্মূল শুদ্ধি অভিযানের নামে এই অবহেলীত শিক্ষানবিশ আইনজীবীদের সাথে দূর্ব্যবহার করা হচ্ছে। আদালত পাড়ায় উপযুক্ত দালাল নির্মূল কার্যক্রমে সাধুবাদ জানায় শিক্ষানবিশরা সহ সর্বস্থরের সুধীজন।

কৌশুলীদের কাজ হল সাদা-কালোর মধ্য দিয়ে আইনী কৌশলের মাধ্যমে সঠিক অপরাধীকে চিহ্নিত করতে আদালতকে সাহায্য করে দোষীদের শাস্তি নিশ্চিত করা কিন্তু কোন দোষীর পক্ষে কৌশল অবলম্বন করে তাকে আইনের ফাঁক-ফোকড়ে বাঁচায় দেওয়া নয়। কোন নিরপরাধ লোক যদি অপরাধীর কাতারে থাকে তবে তাকে কৌশলে নিরপরাধী প্রমাণ করা প্রকৃত কৌশুলীর কাজ। আর এই কৌশল যেন শিক্ষানবিশ দমনে নয় বরং শিক্ষানিশদের স্বতঃস্ফুর্তভাবে অনুপ্রেরণা জোগায়ে তাদের ন্যায্য অধিকার নিশ্চিতে সহায়তা করতে সাহায্য করা হয়।

আইন বিষয়ে ডিগ্রীধারী শিক্ষানবিশদের প্রতি কোন অন্যায় আদেশ বা আচরণ মোটেও কাম্য নয়। এই শিক্ষানবিশরা আপনাদেরই ভাই,ভাতিজা কিংবা সন্তানতুল্য। তাদের সাথে স্নেহভাজন আচরণ একান্ত কাম্য।

শিক্ষানবিশরা আগামীর সম্ভাবনার তকমা মাথায় নিয়ে লড়ে যাচ্ছে জীবন যুদ্ধে। প্রতি বছরে দুটো পরীক্ষা হওয়ার বিধান থাকলেও তা বিভিন্ন জটিলতার কারণ দেখিয়ে তা আর নেওয়া হয় না। বছরে অন্তত একটা পরীক্ষা প্রসেস সম্পন্ন করার মহামান্য হাইকোর্টের রায়ে নির্দেশনা থাকলেও তাও সঠিকভাবে মানা হয় না। সর্বশেষ তিন বছর পরে ২০২০ সালের ২৮ ফেব্রুয়ারী একটা প্রিলি পরীক্ষা পেয়েছে শিক্ষার্থীরা। প্রিলিতে সামান্য কিছু পাশ করলেও উদ্ভুত করোনার পরিস্থিতে আর রিটেন নেওয়া হয়নি।

এত অবিচার আর নিজেদের জীবনের আইডেন্টিটি সংকটের উত্তোরণের জন্যই শিক্ষানবিশরা আজ প্রায় ৩ মাস রাজপথে আন্দোলন করে চলছে। একটি উন্নয়নশীল রাষ্ট্রে এত আইনের শিক্ষিত বেকার অনিয়মে কিংবা দাবী আদায়ের জন্য রাস্তায় রেখে দেশের উন্নয়ন কোন ভাবেই সম্ভব না। এটা জাতীর জন্য উন্নয়নে বাঁধার এক অসনী সংকেত। এত বড় একটা অংশ অন্ধকারে রেখে  ডিজিটাল দেশ গড়ার স্বপ্ন অন্তরায় সৃ‌স্টি হ‌বে যা আধু‌নিক তথ‌্যপ্রযু‌ক্তি নির্ভশীল আইনঅঙ্গন এই শিক্ষানবীশরাই সমৃ‌দ্ধি কর‌তে পার‌বে।

———ভুক্তভোগী শিক্ষানবিশরা আজ এত বড় সামাজিকভাবে অপহেলীত কেন? কে বা কাহারা এমন সংকটে ধাবিত করে বিপদগামী করল? আসলে এসবের জন্য দায়ী কারা? কে নেবে এমন দায়? কে হবে কান্ডারী এই অবহেলীত শিক্ষানবিশদের? সাংবিধানিক মৌলিক অধিকার কি পেতে পারে না এরা?এত সব নানা প্রশ্নের উত্তর কি আদৌ মিলবে? নিশ্চয়ই না।

হয়তবা বেশি ভালবেসে কেউ না কেউ আইন বিষয়ে পড়ার পরামর্শ দিয়েছিল। আজ আইনের একা‌ডে‌মিক  ডিগ্রী নিয়ে আইনজীবী হিসেবে সনদের জন্য যেন নদীর মাঝখানে পড়ে হাবুডুবু খাচ্ছে শিক্ষানবিশরা। এ যেন গাছে উঠায় দিয়ে মই নিয়ে পলায়নের মত অবস্থা। অন্ধকারের পর একদিন আলোর মুখ দেখবেই শিক্ষানবিশরা তা যেন হয় অনতিবিলম্বে।

শিক্ষানবিশদের ন্যায্য দাবীর আন্দোলন প্রায় সফলতার দারপ্রান্তে এসেছে এটা অনেকের ধারনা। দৃষ্টি আকর্ষণ হয়েছে এম,পি মন্ত্রী সহ সুধী সমাজের। এমনকি মহান জাতীয় সংসদেও এ বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করেছে একজন এম,পি মহোদয়। আন্দোলনের বর্তমান অবস্থায় শিক্ষানবিশ আইনজীবীদের আন্দোলন সমন্বয়করা নিজেরা আরো ঐক্যতার মাধ্যমে সুচারুভাবে আন্দোলের গতিপথ সৃষ্টি করে সফলতা এনে দিবে এমনটা প্রত্যাশা সকল ভূক্তভোগী শিক্ষানবিশ আইনজীবীদের।

শিক্ষানবিশদের এই চরম বিপর্যয়ে তাদের দাবী এদেশের আইন ব্যবস্থা যেহেতু আমাদের পার্শ্ববর্তী দেশ গুলোর আইনের সিদ্ধান্ত নজির হিসেবে ফলো করে তেমনি পার্শ্ববর্তী দেশগুলোর আইনজীবী তালিকাভূক্তির নিয়ম ফলো করে বর্তমানের সনাতন তিন ধাপের পরীক্ষা পদ্ধতি সংস্কার করে রিটেন পরীক্ষা চিরতরে বাতিল করে দ্রুত আইনজীবী তালিকাভূক্ত করণ পদ্ধতির আধুনিকায়ন করা হোক। কিংবা প্রিলি পাশকৃতদের বর্তমান সমস্যা নিরসনে করোনাকালীন পরিস্থিতির কারনে আপাতত রিটেন মওকুফ করে ভাইভার মাধ্যমে দ্রুত আইনজীবী হিসেবে তালিকা ভূক্ত করণের ব্যবস্থা করতে যথাযথ কর্তৃপক্ষের সুদৃষ্টি কামনা করে।

মোঃ রায়হান আলী, সাংবাদিক ও শিক্ষানবিশ আইনজীবী,খুলনা।

About bdlawnews

Check Also

হতাশায় নিমজ্জিত শিক্ষানবিশ আইনজীবীদের দেখার কেউ নেই!

করোনার ভয়াল থাবার ভয় উপেক্ষা করে জীবনের বাজি রেখে একখানা সনদের দাবীতে রাজধানী ঢাকার প্রেস …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Powered by themekiller.com