Home / Uncategorized / দুই লম্পট ধর্ষক গ্রেফতার শেরপুরে দ্বিতীয় শ্রেণীর ছাত্রী ধর্ষণ পঞ্চম শ্রেণীর ছাত্রীকে ধর্ষণের চেষ্টা

দুই লম্পট ধর্ষক গ্রেফতার শেরপুরে দ্বিতীয় শ্রেণীর ছাত্রী ধর্ষণ পঞ্চম শ্রেণীর ছাত্রীকে ধর্ষণের চেষ্টা

শেরপুর (বগুড়া) থেকে এসআইশফিক ঃ যেন থামছেই না ধর্ষণের মত জঘন্য ঘটনা। বগুড়ার শেরপুরে আবারও চকলেট কিনে দেয়ার প্রলোভন দিয়ে দ্বিতীয় শ্রেণীর এক ছাত্রীকে ধর্ষণ করা হয়েছে। আর পঞ্চম শ্রেনীর অপর এক ছাত্রীকে ধর্ষণের চেষ্টা এমন অভিযোগ উঠেছে। ধর্ষণের ঘটনায় ২য় শ্রেণীর স্কুল ছাত্রীর মা শেরপুর উপজেলার ৮নং সুঘাট ইউনিয়নের চোমরপাথালিয়া গ্রামের আশরাফ আলীর স্ত্রী ডালিম বেগম গত ১৩ অক্টোবর মঙ্গলবার রাতে শেরপুর থানায় বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেন। এরপর মামলায় অভিযুক্ত ধর্ষক রজিব সেখ (৩৪)কে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। ধর্ষক রজিব চোমরপাথালিয়া গ্রামের বাবলু মিয়ার ছেলে। অপরদিকে শেরপুর উপজেলার ৭নং ভবানীপুর ইউনিয়নের সাহাপাড়া গ্রামে পঞ্চম শ্রেণীর এক ছাত্রীকে ধর্ষণের চেষ্টা করে তার প্রতিবেশি বেল্লাল হোসেন (৩৪) নামের এক লম্পট। রাতের আঁধারে একা পেয়ে স্কুলছাত্রীর ঘরের ঢেউ টিনের দরজা ভেঙে ভেতরে ঢুকে বেল্লাল হোসেন। এরপর তাকে জোরপূর্বক ধর্ষণের চেষ্টা চালায় বেল্লাল। এসময় মেয়েটি চিৎকার দিলে লম্পট বেল্লাল তার পরনের লুঙ্গি ফেলে উলঙ্গ হয়ে পালিয়ে যায়। গত ১৩অক্টোবর রাত দশটার দিকে এই ঘটনাটি ঘটে। এরপর অসহায় ওই ছাত্রীর বাবা আব্দুল মোমিন সেখ গতকাল বুধবার দুপুরে শেরপুর থানায় লিখিত অভিযোগ দেন। পুলিশ লম্পট বেল্লাল হোসেন (৩৪)কে আটক করেন।
এনিয়ে বগুড়া জেলা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শেরপুর সার্কেল মো. গাজিউর রহমান বলেন, গত ১০ অক্টোবর দুপুর সাড়ে বারোটায় শেরপুর উপজেলার সুঘাট ইউনিয়নের চোমরপাথালিয়া গ্রামে মাত্র দশ বছর বয়সের এক শিক্ষার্থীকে লম্পট রজিব সেখ চকলেট কিনে দেয়ার প্রলোভন দেখিয়ে রাস্তার পাশে ফসলি মাঠের ধানক্ষেতে নিয়ে মেয়েটির জামা-কাপড় খুলে তাকে প্রাণ নাশের ভয় দেখিয়ে ধর্ষণ করে। এরপর শিশুটি প্রাণভয়ে কাঁদতে কাঁদতে বাড়িতে যায়। পরে তার মাকে ঘটনাটি খুলে বলে। এরমধ্যে শিশুটির রক্তপাতসহ প্রচন্ড জ¦র আসে। তখন তাকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়ার পর ঘটনাটি গ্রাম্য মাতব্বর গণ বিষয়টি অর্থের বিনিময়ে ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা চালায়। এরপর শিশু ছাত্রী ও তার মাকে পুলিশ থানায় এনে ধর্ষণ মামলা নেন। সেইসাথে পলাতক ধর্ষককে গ্রেপ্তার করেন। গতকাল বুধবার ধর্ষণের শিকার ক্ষুদে শিশুটির ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হয়। আর ধর্ষকের কাছ থেকে আরও তথ্য পাওয়ার জন্য সাতদিনের রিমান্ড আবেদন আদালতে পাঠানো হয়। শেরপুর থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) এসএম আবুল কালাম আজাদ বলেন, শেরপুর উপজেলার ভবানীপুর ইউনিয়নের সাহাপাড়া গ্রামের আব্দুল মোমিন তার স্ত্রী তিন সন্তানকে বাড়িতে রেখে সিরাজগঞ্জ জেলা সদরে শ^শুর বাড়িতে যান। এই সুযোগে প্রতিবেশি মনু মিয়ার ছেলে লম্পট বেল্লাল হোসেন ঢেউ টিনের বেড়া কেটে ঘরের ভেতরে প্রবেশ করে ওই ছাত্রীকে ধর্ষণের চেষ্টা চালায়। পুলিশ ভবানীপুর বাজার এলাকা থেকে অভিযুক্ত বেল্লাল হোসেনকে গ্রেফতার করে। এলাকাবাসীর মতে, যেন থামছেই না শেরপুরে একের পর এক ধর্ষণের মত জঘন্য ঘটনা।

About bdlawnews

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!

Powered by themekiller.com