Home / আইন আদালত / ‘বৈবাহিক ধর্ষণ’র আইনি প্রতিকার জানতে চাইলেন হাইকোর্ট

‘বৈবাহিক ধর্ষণ’র আইনি প্রতিকার জানতে চাইলেন হাইকোর্ট

‘বৈবাহিক ধর্ষণ’র আইনি প্রতিকার বিষয়ে সরকারের কাছে ব্যাখ্যা জানতে চেয়েছেন দেশের উচ্চ আদালত। মানবাধিকার সংগঠন ব্লাস্ট, ব্র্যাক, নারীপক্ষ ও মানুষের জন্য ফাউন্ডেশনের করা এক রিটের পরিপ্রেক্ষিতে মঙ্গলবার (৩ নভেম্বর) এ আদেশ দেন আদালত।

এর আগে, ভয় দেখিয়ে, প্রতারণার মাধ্যমে বা যে কোনোভাবে সম্মতি ছাড়া স্ত্রীর সঙ্গে যৌন সঙ্গমকে ‘বৈবাহিক ধর্ষণ’ গণ্য করে আইন সংশোধন করতে আইনি নোটিশ পাঠানো হয়। একটি বেসরকারি টেলিভিশনের সাংবাদিকের পক্ষে রোববার (০১ নভেম্বর) সংশ্লিষ্টদের কাছে রেজিস্ট্রি ডাকে নোটিশটি পাঠান আইনজীবী মো. জাহিদ চৌধুরী জনি।

বিবাদী আইন সচিব, মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব, স্বরাষ্ট্র সচিব, আইন কমিশন ও জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান, মহিলা ও শিশুবিষয়ক অধিদফতর ও সমাজসেবা অধিদফতরের মহাপরিচালককে কাছে নোটিশটি পাঠানো হয়। এ সময় সাত দিন সময় বেধে দেওয়া হয়। এ সময়ের মধ্যে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন ও দণ্ডবিধিসহ সংশ্লিষ্ট সব আইন ও বিধিতে ‘বৈবাহিক ধর্ষণ’ অন্তর্ভুক্ত করে আলাদা গেজেট প্রকাশের অনুরোধ জানানো হয়। যথাসময়ে পদক্ষেপ না নিলে হাইকোর্টে রিট আবেদন করাসহ আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও সতর্ক করা হয় নোটিশে।

১৯৯৩ সালে জাতিসংঘ বৈবাহিক ধর্ষণকে মানবাধিকার লঙ্ঘন বলে ঘোষণা দিয়েছে। কিন্তু বাংলাদেশ এখন পর্যন্ত সেটাকে স্বীকৃতি দেয়নি। বেসরকারি সংস্থা ‘মানুষের জন্য ফাউন্ডেশন’র পরিসংখ্যান উদ্ধৃত করে নোটিশে বলা হয়েছে, গত এপ্রিলে কমপক্ষে ৪ হাজার ২৪৯ জন নারী ও ৪৫৬ শিশু পারিবারিক সহিংসতার শিকার হয়েছে। তার মধ্যে ৬৫ জেলায় ২৭ নারী বৈবাহিক ধর্ষণের শিকার হয়েছেন।

নোটিশে আরও বলা হয়, দেশের অধিকাংশ বিবাহিত নারী বৈবাহিক ধর্ষণ বিষয়ে সচেতন নন। পুরুষের পাশাপাশি অনেক নারীও মনে করেন স্ত্রী হচ্ছে স্বামী বা পুরুষের সম্পত্তি। পুরুষ বা স্বামীটি হচ্ছে সত্ত্বাধিকারী। একজন ভুক্তোভোগী নারীর কাছে ‘বৈবাহিক ধর্ষণ’ ধর্ষণের চাইতেও মারাত্মক এবং যন্ত্রণাদায়ক। দেশ অনেক দিক থেকে উন্নতি করেছে। কিন্তু বৈবাহিক ধর্ষণকে এখনও অপরাধ হিসেবে গণ্য করতে পারছে না। ফলে নারীর প্রতি সহিংসতা বন্ধে বৈবাহিক ধর্ষণ বিষয়ে আইন প্রণয়নের এটাই উপযুক্ত সময় আইন প্রণেতাদের জন্য।

About bdlawnews

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!

Powered by themekiller.com