Home / আইন পড়াশুনা / বার কাউন্সিলের আইনজীবী অন্তর্ভুক্তির লিখিত পরীক্ষার ফল আগামী ২৯ মে

বার কাউন্সিলের আইনজীবী অন্তর্ভুক্তির লিখিত পরীক্ষার ফল আগামী ২৯ মে

বার কাউন্সিলের আইনজীবী অন্তর্ভুক্তির লিখিত পরীক্ষার ফল আগামী ২৯ মে প্রকাশিত হবে বলে জানিয়েছে বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের এনরোলমেন্ট কমিটি।

মঙ্গলবার (২৫ মে) এনরোলমেন্ট কমিটির অন্যতম সদস্য ও বার কাউন্সিলের ভাইস-চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট ইউসুফ হোসেন হুমায়ুন  এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, মঙ্গলবার এনরোলমেন্ট কমিটির বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। বৈঠকে আগামী ২৯ মে লিখিত পরীক্ষার ফল প্রকাশের জন্য দিন নির্ধারণ করা হয়েছে।

দুই ধাপে অনুষ্ঠিত পরীক্ষার খাতার মূল্যায়ন ও পাসের হার সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘খাতা জুডিসিয়াল কাউন্সিল দেখেছে। আমরা ওইদিন  (২৯ মে) সকালে রেজাল্ট ও খাতা হাতে পাবো। এর বেশিকিছু বলতে পারছি না।’

২০১০ সাল পর্যন্ত বছরে দু’টি পরীক্ষা নিতো  বাংলাদেশ বার কাউন্সিল। তবে ২০১১ সালের পর থেকে আইনজীবীদের বারে অন্তর্ভুক্তির পরীক্ষা তিন ধাপে (নৈর্ব্যক্তিক, লিখিত ও মৌখিক) অনুষ্ঠানের বিধান করা হয়। একইসঙ্গে পিছিয়ে পড়ে বছরে দুটি করে পরীক্ষা নেওয়ার কার্যক্রম। ফলে ২০২১ সাল পর্যন্ত প্রায় ৭০ হাজার আইন শিক্ষার্থীর জট তৈরি হয়।

এদিকে পরীক্ষা নিয়ে শিক্ষার্থীদের দাবির মুখে প্রায় ৩ বছর পর ২০২০ সালের ফেব্রুয়ারিতে নৈর্ব্যক্তিক পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। এরপর প্রকাশিত হয় ফল। একইবছরের মার্চে দেশে করোনার প্রাদুর্ভাব দেখা দেয়। তাতে থমকে যায় জনজীবন। কিন্তু করোনা পরিস্থিতি কিছুটা সামলে ওঠার পর নৈর্ব্যক্তিকে উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীরা মৌখিক পরীক্ষার মাধ্যমে আইনজীবী সনদের দাবি জানান।

তবে করোনা বিবেচনায় সেসব দাবির প্রতি ভ্রুক্ষেপ না করে একইবছরের ১৯ ডিসেম্বর ১২ হাজার ৮৭৮ জন শিক্ষার্থীর লিখিত পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়।

করোনার মাঝেও পরীক্ষা এবং প্রশ্নপত্র কঠিন হওয়া নিয়ে রাজধানীর ৯টি কেন্দ্রের পাঁচটিতে বিশৃঙ্খলা, হলে ভাঙচুর ও উত্তরপত্র ছিনিয়ে নিয়ে ছিঁড়ে ফেলার ঘটনা ঘটে। পরে বার কাউন্সিলের চেয়ারম্যান ও অ্যাটর্নি জেনারেল এএম আমিন উদ্দিন ক্ষতিগ্রস্ত কেন্দ্রগুলো পরিদর্শন করেন এবং এর সুষ্ঠ বিচারের আশ্বাস দেন।

পরে এ ঘটনায় দায়ের হওয়া একাধিক মামলায় ৫০ জনের বেশি শিক্ষার্থীকে গ্রেফতার করে রিমান্ডে নেয় পুলিশ। এদিকে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি হওয়া পাঁচটি কেন্দ্রের পরীক্ষা চলতি বছরের ২৭ ফেব্রুয়ারি পুনরায়  অনুষ্ঠিত হয়।

গত ১৯ ডিসেম্বরের পরীক্ষায় বিশৃঙ্খলার ঘটনায় ইতোমধ্যে জড়িত বা উসকানি দেওয়ার অভিযোগ তুলে কয়েকজন শিক্ষার্থীকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দিয়েছেন বার কাউন্সিলের সচিব রফিকুল ইসলাম। জানা গেছে, উক্ত নোটিশের জবাব দিয়েছেন  বেশ কয়েকজন শিক্ষার্থী।

২০১৭ও ২০২১ মি‌লে প্রায় ১৩ হাজার শিক্ষার্থী এ লিখিত পরীক্ষায় অংশ নিয়েছিলেন। বাংলাদেশ বার কাউন্সিলে আইনজীবীদের সনদ পেতে নৈর্ব্যক্তিক, লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে হয়। আবার ওই তিন ধাপের যেকোনো একটি পরীক্ষায় শিক্ষার্থীরা একবার উত্তীর্ণ হলে পরবর্তী পরীক্ষায় তারা দ্বিতীয় ও শেষবারের মতো অংশগ্রহণের সুযোগ পান।

About admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!

Powered by themekiller.com