সদ্য সংবাদ
Home / রাজনীতি / শিক্ষায় দৈন্য, সম্পদে ধনী

শিক্ষায় দৈন্য, সম্পদে ধনী

সিলেটের গোলাপগঞ্জ পৌরসভার আসন্ন নির্বাচনে সাত মেয়র পদপ্রার্থীর মধ্যে তিনজন ‘স্বশিক্ষিত’। বাকি চারজনও মাধ্যমিকের গণ্ডি পেরোতে পারেননি। কিন্তু প্রায় সবাই বেশ সম্পদশালী। চারজন ব্যবসায়ী; বাকিরা যথাক্রমে জায়গা কেনাবেচা করেন, রেস্তোরাঁর ব্যবস্থাপক ও কৃষিজীবী। তবে কারও বিরুদ্ধেই মামলা চলমান নেই।
মনোনয়নপত্রের সঙ্গে নির্বাচন কমিশনে দাখিল করা প্রার্থীদের হলফনামা থেকে এসব তথ্য জানা গেছে।

সিলেটের জ্যেষ্ঠ জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মোহাম্মদ আজিজুল ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, প্রার্থীরা সত্য তথ্য উপস্থাপন করেছেন বলে হলফনামার মাধ্যমে জানিয়েছেন। এ ক্ষেত্রে কোনো গরমিল খুঁজে পাওয়া গেলে অথবা কোনো অভিযোগ পেলে নির্বাচনী বিধি অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

হলফনামা ঘেঁটে দেখা গেছে, আওয়ামী লীগ-সমর্থিত প্রার্থী জাকারিয়া আহমদ (পাপলু) মাধ্যমিক পর্যন্ত পড়াশোনা করেছেন। পেশায় ব্যবসায়ী জাকারিয়ার বার্ষিক আয় ১৪ লাখ ৫২ হাজার ২৩৬ টাকা। তাঁর অস্থাবর সম্পদ রয়েছে ৩১ লাখ ৭৯ হাজার ৬৬৪ টাকার; স্থাবর সম্পদের মধ্যে রয়েছে ২২ দশমিক ৮৮ শতক কৃষি-অকৃষি জমি এবং চারটি দোকান। তাঁর ৪২ লাখ ৭২ হাজার ৯১১ টাকার ঋণ রয়েছে।

বিএনপি-সমর্থিত প্রার্থী গোলাম কিবরিয়া চৌধুরী (শাহীন) ‘স্বশিক্ষিত’। পেশায় তিনিও ব্যবসায়ী। বার্ষিক আয় ৮ লাখ ৯৪ হাজার ৭৬০ টাকা। স্ত্রী ও নিজের অস্থাবর সম্পদ রয়েছে ২ লাখ ৯৫ হাজার টাকার। ব্যক্তিগত স্থাবর সম্পদ রয়েছে ১ হাজার ২৭৫ শতক কৃষি-অকৃষি জমি। আর্থিক প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যান ও পরিচালক হওয়ার সুবাদে তাঁর ঋণ রয়েছে ৩৯ কোটি ৩৮ লাখ ৮ হাজার ৬৩৬ টাকার।

উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক সিরাজুল জব্বার চৌধুরী দলীয় মনোনয়ন না পাওয়ায় স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েছেন। ‘স্বশিক্ষিত’ সিরাজুল পেশায় কৃষিজীবী। বার্ষিক আয় তিন লাখ টাকা। স্ত্রী ও নিজের অস্থাবর সম্পদ রয়েছে ৩ লাখ ৩৮ হাজার ৫০০ টাকার। স্থাবর সম্পদের মধ্যে রয়েছে ৯৫০ শতক কৃষি-অকৃষি জমি এবং ১১০ শতকের ওপরে একটি বাড়ি। তাঁর কোনো ঋণ বা দেনা নেই।

জাতীয় পার্টি-সমর্থিত প্রার্থী মো. সুহেদ আহমদ অষ্টম শ্রেণি পর্যন্ত পড়াশোনা করেছেন। পেশায় ব্যবসায়ী সুহেদের বার্ষিক আয় ২ লাখ ৫০ হাজার টাকা। স্ত্রী ও নিজের অস্থাবর সম্পদ রয়েছে ২ লাখ ৭০ হাজার টাকার। স্থাবর সম্পদের মধ্যে সাড়ে ২৩ শতক অকৃষি জমি রয়েছে। তাঁর ২০ লাখ টাকার দেনা রয়েছে।
স্বতন্ত্র প্রার্থী আমিনুল ইসলাম ‘স্বশিক্ষিত’। তাঁর পেশা ‘জায়গা কেনাবেচা’। বার্ষিক আয় ২ লাখ ২০ হাজার টাকা। তাঁর ৬ লাখ ৭৫ হাজার টাকার অস্থাবর সম্পদ রয়েছে; স্থাবর সম্পদের মধ্যে একটি একতলা দালান রয়েছে। আমিনুলের কোনো দায়দেনা নেই।

আরেক স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. আমিনুল ইসলাম মাধ্যমিক পর্যন্ত পড়াশোনা করেছেন। তিনি স্থানীয় একটি রেস্তোরাঁর ব্যবস্থাপক। বার্ষিক আয় ২ লাখ ৬০ হাজার টাকা। তাঁর ও স্ত্রীর অস্থাবর সম্পদ রয়েছে ৩ লাখ ৩০ হাজার টাকার; ব্যক্তিগত স্থাবর সম্পদের মধ্যে রয়েছে ৩৭ শতক কৃষি-অকৃষি জমি, একটি দালান এবং একটি বাড়ি। তাঁরও কোনো দায়দেনা নেই।

মাধ্যমিক পর্যন্ত পড়াশোনা করা আরেক স্বতন্ত্র প্রার্থী আমিনুর রহমান পেশায় ব্যবসায়ী। বার্ষিক আয় ৪ লাখ ৩০ হাজার ৮০০ টাকা। নিজের, স্ত্রীর ও নির্ভরশীলদের অস্থাবর সম্পদ রয়েছে ৫৪ লাখ ৪৫ হাজার ১৬১ টাকার। এ ছাড়া স্ত্রী ও মেয়ের স্বর্ণালংকার রয়েছে ৫১ ভরি। ব্যক্তিগত স্থাবর সম্পদের মধ্যে রয়েছে কিছু কৃষি-অকৃষি জমি, ১২টি দোকান ও আটটি অ্যাপার্টমেন্ট। একটি ব্যাংকে তাঁর ১৫ লাখ টাকার দেনা রয়েছে।

প্রার্থীদের শিক্ষাগত যোগ্যতার চিত্র দেখে হতাশা ব্যক্ত করেছেন সুশাসনের জন্য নাগরিক-সুজনের সিলেট সভাপতি ফারুক মাহমুদ চৌধুরী। তিনি প্রথম আলোকে বলেন, সাত প্রার্থীর একজনও উচ্চমাধ্যমিকের গণ্ডি পেরোতে না পারার বিষয়টি সত্যিই দুঃখজনক।

About admin

Check Also

করোনাভাইরাস থেকে মানুষকে বাঁচানোর জন্য ভবিষ্যতে আরও কঠোর পদক্ষেপ

করোনাভাইরাস থেকে মানুষকে বাঁচানোর জন্য ভবিষ্যতে আরও কঠোর পদক্ষেপ নিতে হবে বলে মনে করেন প্রধানমন্ত্রী …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!

Powered by themekiller.com