Home / রাজনীতি / এবার খুলনা আওয়ামী লীগে চমক

এবার খুলনা আওয়ামী লীগে চমক

বড় ধরনের চমক আসছে খুলনা মহানগরী ও জেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলনে। এরই মধ্যে কমিটির শীর্ষ পদগুলো নিয়ে আলোচনা শুরু হয়েছে। দলটির দায়িত্বশীল নেতারা বলছেন, দীর্ঘদিনের ত্যাগী ও নিষ্কলুষ ভাবচ্ছবির নেতারা আসবেন নতুন দায়িত্বে। একই সঙ্গে দুর্নীতির অভিযোগে অভিযুক্ত এবং অন্য দল থেকে আসা সুবিধাবাদীদের ছেঁটে ফেলা হবে এবারের সম্মেলনে।

জানা যায়, দীর্ঘ পাঁচ বছর পর ১০ ডিসেম্বর খুলনায় একই মঞ্চে মহানগরী ও জেলা আওয়ামী লীগের ত্রিবার্ষিক সম্মেলন হবে। সম্মেলন ঘিরে শুরু হয়েছে উৎসবের আমেজ। ব্যানার-ফেস্টুনে ছেয়ে গেছে পুরো নগরী।

আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মীরা বলছেন, বিগত উপজেলা নির্বাচন দগদগে ঘায়ের মতো নেতা-কর্মীদের ওপর চেপে রয়েছে। এছাড়া কমিটির শীর্ষ অনেকের বিরুদ্ধে উঠেছে ক্ষমতার অপব্যবহার, দুর্নীতিসহ নানা অভিযোগ। কিছু হাইব্রিড নেতার কর্মকাণ্ডের জন্য দল বিতর্কিত হয়েছে। এ জায়গাটা মজবুত করতে শক্তিশালী কমিটি গঠন ছাড়া বিকল্প নেই।

মহানগরী আওয়ামী লীগের সভাপতি সিটি মেয়র তালুকদার আবদুল খালেক বলেন, ‘যারা এত দিন রাজপথে আন্দোলন-সংগ্রাম করেছেন, যারা সংগঠন পরিচালনা করেছেন, তাদের মধ্যে যদি ব্যর্থতা না থাকে তাহলে পরীক্ষিত কাউকে বাদ দিয়ে নতুন কাউকে আনা হবে না। তবে যদি কেউ সাংগঠনিক কর্মকাণ্ডে  পিছিয়ে পড়েন সে ক্ষেত্রে কমিটিতে তরুণ নেতৃত্ব বেছে নেওয়া হবে।’

এদিকে, সম্মেলনে দুই ইউনিটের সভাপতি পদে পরিবর্তনের আভাস না মিললেও সাধারণ সম্পাদক পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় রয়েছেন একঝাঁক তরুণ নেতৃত্ব। তবে ক্ষোভ-অভিমানে নিজেকে কিছুটা গুটিয়ে রাখা মহানগরী সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান আবারও রাজনীতিতে সক্রিয় হয়েছেন।

অন্যদিকে, সাধারণ সম্পাদক পদে পরিবর্তনের মধ্যে দিয়ে খুলনা জেলা আওয়ামী লীগের দুই মেরুর রাজনীতিতে ‘সমন্বয়’ হতে পারে সম্মেলনে। গত ১৬ নভেম্বর সাবেক সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা রশিদী সুজার অনুসারী দলের যুগ্মসম্পাদক সরফুদ্দিন বিশ্বাস বাচ্চুর জন্মদিনে কেক কেটে চমক তৈরি করেন জেলা সভাপতি শেখ হারুনুর রশীদ। ২০১৫ সালে কমিটি গঠনকে কেন্দ্র করে শেখ হারুনুর রশীদ ও মোস্তফা রশিদী সুজার অনুসারীরা সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন। ২০১৮ সালের ২৬ জুলাই সুজার মৃত্যুর পরও জেলা-উপজেলায় কমিটি গঠন নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে দূরত্ব রয়ে গেছে।

তবে দলীয় প্রধান পরিচ্ছন্ন নেতৃত্বের পক্ষে বলে জানিয়েছেন প্রভাবশালী আওয়ামী লীগ নেতা শেখ হেলাল উদ্দিন এমপি। ২৬ নভেম্বর খুলনায় দলের বর্ধিত সভায় তিনি বলেন, ‘শেখ হাসিনা দলকে শক্তিশালী করতে যোগ্য নেতৃত্ব বাছাই করবেন। আমরা তার সিদ্ধান্তের প্রতি আস্থাশীল।’

About bdlawnews24

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!

Powered by themekiller.com